Join 100,607 users already on read.cash

Please don’t through baby upward

1 15 exc
Avatar for Cutie_Angel_Mukta
Written by   213
2 years ago

Rajib and Moyna had their first child. The girl's name was "Ira". She was a very cute girls. She had magic in her face. Anyone who wants to care, they would just pull her cheek. The first child, there was no shortage of care. Shee began to grow naturally healthy.

One day ,

The girl was five months old. It was winter then. The morning sunlight was too much useful for the baby.

She was lying down in the sun. Suddenly, there was Robin in the next room. Ira's uncle is Robin. He took Ira in his arms and began to cares. He tried to laugh. After a while, he left Iraq in the sky and caught her again. Ira was too happy and she was also laughing. Moyna was also smiling. Any mother likes when her daughter smiles.

Looking this, Moyna feels good. And why Robin! Everyone is playing like this with the baby. Robin left Ira to the sky again. Catch as well.

But wass this the same ??

Ira is not smiling. She is closing her eyes. Robin got scared. He instantly called Moyna. Moyna ran quickly.

She came and took Irabati in her arms. She started calling her by different names. She tried to open her eyes with her hands. But no! Ira wasn't opening her eyes. 

Moyna shouted and cried. All the people of the house came and crowded. Everyone tried their best to wake up Ira. No one could. Lying in the yard, Moyna began to roll.

They rushed to a hospital . After being taken to the emergency room, the doctor examined her and said that Ira was dead. She won't laugh anymore. Her smile had stopped forever.

Hearing this, Moyna became unconscious.

She can't take the pain of losing her only daughter.  Ira was buried behind the house . Sometimes Moyna behaves like crazy girl at night.  Sometimes she ran to the grave. She can't forget Ira. She had stopped eating.  Rajib has to move to the city with the Moyna.

Explanation:

We get a lot of pleasure by lifting the children in the sky and taking them in our arms again. But it takes a long time for the limbs of children to mature. They aren't very easy.May be injured. When Ira was repeatedly lifted up, against the gravity, it was repeatedly hitting the skull bones with her brain. Since her brain was also soft.

The bones of the head are also soft, so repeated collisions with the bones rupture the arteries of her brain. The arteries carry blood through the veins. Bleeding starts inside the head by rupturing the arteries of the brain. There is glucose in the blood. Without glucose, the brain dies within 4-5 minutes.

Ultimately brain death is a small error coming out of all the arteries.

So know these things, be careful.

Spread the informations so that they can also know.

In Bengali

রাজিব ও ময়না দম্পতির সংসারে প্রথম সন্তান আসল। মেয়ের নাম রাখা হল "ইরা"। অনেক ফুটফুটে মেয়ে।দেখতে অনেক মায়াবী। গালে নরম মাংস।যে কেউ দেখলেই আদর করতে চাইবে, গালের মাংস ধরে টানাটানি করবে। প্রথম সন্তান,যত্নের কোন ঘাটতি রইল না।সুস্থ্য স্বাভাবিকভাবেই বড় হতে লাগল সে।

একদিন...

মেয়ের বয়স পাঁচ মাস।শীতকাল তখন।উঠোনে মেয়েকে নিয়ে রোদ পোহাচ্ছে ময়না। সকালের রোদ বাচ্চার জন্য খুব

উপকারী। বাচ্চাকে

রোদে শুইয়ে রাখল। হঠাৎই সেখানে আসল পাশের ঘরের রবিন। ইরার চাচা হয় রবিন। এসেই ইরাকে কোলে নিল।আদর করতে লাগল। হাসানোর চেষ্টা করল।কিছুক্ষণ পর সে ইরাকে আকাশের দিকে ছেড়ে দিয়ে আবার বল ক্যাচ ধরার মত করে ধরছে। এতে যেন ইরা আরও ☺

খুশি হচ্ছে। ময়নাও দেখে হাসছে। মেয়ে হাসলে যেকোন মায়েরই ভালো লাগে।🙂

ময়নারও ভালো লাগছে। আর রবিন কেন!সবাই ই তো এভাবে খেলা করে বাচ্চাকে নিয়ে।রবিন আবার ইরাকে আকাশের দিকে ছেড়ে দিল। ঠিকঠাক মত ক্যাচও

ধরল।

কিন্তু একি হল??

ইরা হাসছে না।😔 চোখ বন্ধ করে আছে। রবিন ভয় পেয়ে গেল। ময়নাকে ডাক দিল। ময়না দৌড়ে

এসে ইরাবতীকে কোলে নিল ইরাকে।নানান নামে ডাকতে শুরু করল।হাত দিয়ে চোখ খুলার চেষ্টা করল। কিন্তু না!ইরা চোখ খুলছে 😷 না। চিৎকার করে

কেঁদে উঠল ময়না। বাড়ির সব মানুষ এসে ভীড় করল। সবাই সাধ্যমতো চেষ্টা করল ইরাকে জাগানোর। কেউ ই পারল না।উঠোনে শুয়ে গড়াগড়ি খেতে লাগল ময়না।

তাড়াতাড়ি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হল ইরাকে। ইমার্জেন্সিতে নেওয়ার পর ডাক্তার পরীক্ষা নিরীক্ষা করে বলে দিলেন ইরা মারা গেছে। আর হাসবে না সে। চিরদিনের জন্য তার হাসি বন্ধ

হয়ে গেছে। অজ্ঞান হয়ে যায় ময়না।

একমাত্র মেয়েকে হারানোর ব্যাথা সে নিতে পারছে না। ঘরের পিছনে কবর দেওয়া হয় ইরাকে। মাঝে মাঝেই রাতে পাগলের মত আচরণ করে ময়না। মেয়ের

কবরের কাছে দৌড়ে চলে যায়। বিড়বিড় করে কথা বলে! ইরাকে ভুলতে পারছে না।খাওয়া দাওয়া করছে না। শুকিয়ে যাচ্ছে।অগত্যা ময়নাকে নিয়ে শহরে পাড়ি জমায় রাজিব।

ব্যাখ্যাঃ🙏

বাচ্চাদের আকাশে তুলে আবার কোলে নিয়ে আমরা অনেক আনন্দ পাই।বাচ্চারাও পায়। কিন্তু বাচ্চাদের শরীরের অংগপ্রত্যংগ ম্যাচিউর হতে অনেকদিন সময় লাগে। খুব সহজেই সেগুলো

আঘাতপ্রাপ্ত হতে পারে। ইরাকে যখন বারবার উপরে তুলা হচ্ছিল তখন গ্রাভিটির এগেইনস্টে তাকে বারবার উপরে তোলায় তার ব্রেইনের সাথে মাথার খুলির হাড্ডির বারবার ধাক্কা লাগছিল। যেহেতু তার ব্রেইন টাও নরম আর

মাথার হাড্ডিটাও নরম তাই হাড্ডির সাথে বারবার ধাক্কা লেগে তার ব্রেইনের ধমনী ছিড়ে যায়। ধমনী শিরাতে রক্ত চলাচল করে। ব্রেইনের ধমনী ছিড়ে রক্তক্ষরণ শুরু হয় মাথার ভিতরে।রক্তে থাকে গ্লুকোজ। গ্লুকোজ না পেলে ব্রেইন ৪-৫ মিনিটের ভিতর মারা যায়।সাথে জীবন্ত মানুষটাও।রক্ত

সব ধমনী দিয়ে বের হয়ে আল্টিমেটলি ব্রেইন ডেথ হয় ছোট্ট ইরার।

তাই এসব ব্যাপারে জানুন, সতর্ক হোন । নিজে বাঁচুন,আপনার প্রিয়জনকেও বাঁচান।

2
$ 0.11
$ 0.11 from @TheRandomRewarder
Avatar for Cutie_Angel_Mukta
Written by   213
2 years ago
Enjoyed this article?  Earn Bitcoin Cash by sharing it! Explain
...and you will also help the author collect more tips.

Comments

Good written. keep sharing dear.😍😍

$ 0.00
2 years ago